গ্রাফিক ডিজাইন কি আমরা গ্রাফিক ডিজাইন বলতে কি বুঝি ২০২১
গ্রাফিক ডিজাইন কি? আমরা গ্রাফিক ডিজাইন বলতে কি বুঝি? ২০২১

আমার নাম নয়ন বিশ্বাস। আমি একজন অতি সামান্য মানুষ। পেশায় একজন লেখক, ব্লগার, গ্রাফিক ডিজাইনার এবং ওয়েব ডেভেলপার। – লেখালেখি করতে খুব ভালো লাগে। আমার এই সামান্য প্রয়াসের মাধ্যমে মানুষের কিছু শেখাতে পারা ও বিনোদন দেওয়ার মাধ্যমে আনন্দ খুঁজে পায়। এবং নিজে ও নতুন কিছু সেখার চেষ্টা করি।

আজ আমরা যারা ১২ ক্লাস শেষ করেছি,  আমাদের কাছে ক্যারিয়ার বিল্ড করার অনেক অপশন আছে। সেই, ক্যারিয়ার অপশন গুলির মধ্যে গ্রাফিক্স ডিজাইন আজ অনেক প্রচলিত এবং এই (প্রফেশনাল) কোর্স করার পর চাকরির সুযোগ অনেক বেশি।

গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে:-

আজ বিভিন্ন রকমের কোম্পানি যেমন, ওয়েব ডিজাইনিং কোম্পানি, এডভার্টাইসিং এবং মার্কেটিং কোম্পানি, গেম ডেভলপমেন্ট কোম্পানি, এপপ্স ডেভলপমেন্ট কোম্পানি এবং এরকমি অনেক  ন্যাশনাল কোম্পানি রয়েছে, যেগুলিতে গ্রাফিক্স ডিজাইনার দেড় প্রয়োজন হয়।

কিন্তু, এর চাহিদার তুলনায় অনেক কম লোক বা ছাত্ররা গ্রাফিক্স ডিজানিং এর কোর্স কোরে ক্যারিয়ার বানানোর কথা ভাবেন। এতে, এই ক্ষেত্রে কাজ করা লোকেদের চাহিদা অনেক বেড়েযাচ্ছে এবং এই লাইনে পাওয়া চাকরিতে মাইনে বা স্যালারি অধিক পরিমানে দেয়া হয়।

তাই, আপনি যদি এমন একটি ( প্রফেশনাল কোর্স ) কোরে নিতে চান, জেটাতে ক্যারিয়ার বানিয়ে ভবিষ্যতে ভালো ( মাইনে ) থাকা একটি চাকরি পাওয়া যাবে, তাহলে গ্রাফিক্স ডিজাইন ( কোর্স ) বা ডিগ্রি করার পরামর্শ আমি দেব।

তাহলে চলুন, বেশি সময় না নিয়ে আমরা নিচে “গ্রাফিক ডিজাইন কি? বা “গ্রাফিক্স ডিজাইন বলতে কি বুঝায়” এবং এর সাথে জড়িত অন্য অনেক প্রশ্নের উত্তর জেনেনেই।

গ্রাফিক ডিজাইন কি?

সোজা ভাবে বললে আমাদের চারপাশে যা কিছু দেখি গ্রাফিক ডিজাইন সবগুলাই গ্রাফিক ডিজাইন এর ভিতর পড়ে , মানুষ ওহ গ্রাফিক ডিজাইন এর একটি অংশ । এবং একটু কঠিন ভাবে বলতে গেলে বুজি গ্রাফিক ডিজাইন হলো এমন একটি প্রক্রিয়া, যেখানে আমরা নিজের ধারণা, শিল্প ( আর্ট ) এবং দক্ষতা ( স্কিল ) ব্যবহার কোরে ছবি, শব্দ , পাঠ ( টেক্সট ) এবং ধারণার মিশ্রণ কোরে একটি আলাদা এবং নতুন ছবি তৈরি করি।

টেক্সট বা ছবি এবং ধারণার মিশ্রনের দ্বারা তৈরি হওয়া এই নতুন ছবি বা গ্রাফিক বিভিন্ন কোম্পানির ব্র্যান্ড পরিচয় বা লোগো,প্রিন্টেড করা জিনিস (বই, নিউস পেপার, ম্যাগাজিনে,অ্যালবাম কভার,ব্যানার বিজ্ঞাপন ইত্যাদি বা লোগো সাজানোর জন্য বা ডিজাইন এবং তৈরি করার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনিং এর মাধ্যমে আমরা অনেক রকমের নতুন নতুন কনসেপ্ট তৈরি করতে পারি। আসলে এর মাধ্যমে বিভিন্ন রকমের আইডিয়া এবং জ্ঞান আমরা ছবির মাধ্যমে প্রকাশ করি।

এই ( গ্রাফিক ডিজাইন ) এর কাজ আমরা, নিজের হাত দিয়েও করতে পারি বা বিভিন্ন কম্পিউটার সফটওয়্যার এর মাধ্যমেও করে নিতে পারি।

কিন্তু, অ্যাডভান্সড এবং প্রফেশনাল ভাবে ডিজাইন তৈরি করার জন্য, আমাদের একটি গ্রাফিক্স ডিজাইন সফটওয়্যার ব্যবহার করাটা জরুরি।

এখন এক কথায় বললে, গ্রাফিক্স ডিজাইনের মাধ্যমে, আমরা বিভিন্ন ধরণে চাক্ষুষ ধারণার নতুন নতুন কনসেপ্ট তৈরি বা ডিজাইন করতে পারি, এই বিষয়ে থাকা নিজের দক্ষতা এবং জ্ঞানের মাধ্যমে। পুরোটাই, আপনার হাথের শিল্প, জ্ঞান এবং ধারণার ওপরে নির্ভর করবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কি কি লাগে ?

এমনিতে, একটি প্রফেশনাল গ্রাফিক ডিজাইন কোর্স জেকেও করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে কাম্পিউটার এর বেসিক কাজ গুলো জানতে হবে।
যেমনঃ

এর জন্য আপনার একটি ল্যাপটপ বা ডেক্সটপ ও ভালো ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে।

  • কাম্পিউটার অন এবং অফ করা ।
  • কাম্পিউটার এর ফাইল ও এপ্স ওপেন করা।
  • কাম্পিউটার এ ব বিভিন্ন এপ্স বা সফটওয়্যার ইনস্টল করা।

এই বেসিক ৩টি কাজ জানলে আপনি প্রফেশনাল গ্রাফিক ডিজাইন কোর্স করতে পারবেন বা প্রফেশনাল গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে পারবেন ।

আপনার সাধারণ জ্ঞান, এই বিষয়ে ক্যারিয়ার বানানোর জন্য এবং ভবিষ্যতে আরো বেশি শিক্ষা অর্জন করার জন্য, আপনার কমিউনিকেশন স্কিল, ক্রিয়েটিভিটি এবং ড্রয়িং এর জ্ঞান সাধারণ থাকতে হবে।তাহলে আপনি গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে পারবেন।

গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে কতদিন লাগে?

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে আপনি আপনার ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন। আর আপনি যদি স্টুডেন্ট বা চাকরিজীবি হন তাহলে কাজের পাশাপাশি এটি করে ভালো একটা ইনকাম করতে পারবেন আপনি যদি কোনো কলেজ থেকে গ্রাফিক ডিজাইন এর ব্যাচেলর ডিগ্রী কোর্স করছেন, তাহলে ৩ থেকে ৪ বছর সময় লাগবে। এবং, সঠিক এবং ভালো ভাবে এই কোর্স শেখার জন্য ব্যাচেলর ডিগ্রী কোর্স করাটাই লাভজনক হবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনিং এর ওপরে যখন আপনার ৪ বছরের একটি ডিগ্রী সার্টিফিকেট থাকবে, তখন যেকোনো কোম্পানিতে চাকরি পাওয়ার সুযোগ অনেকটাই বেড়ে যাবে।

আপনি চাইলে ব্যাচেলর ডিগ্রী, করার পর, এই বিষয়ে মাস্টার ডিগ্রী করে, নিজেকে আরো বেশি এক্সপার্ট এবং প্রফেশনাল বানিয়ে নিতে পারবেন। এই ক্ষেত্রে,( মাস্টার্স গ্রাফিক্স ডিজাইনিং ) এর কোর্স করার জন্য আপনাদের আরো ২ বছর সময় লেগে যাবে।

তাছাড়া, যদি আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ডিপ্লোমা কোর্স, করার কথা ভাবছেন, তাহলে এতে আপনার ৮ থেকে ১০ মাস সময় লেগে যাবে।

আসলে, অনেক রকমের ইনস্টিটিউট রয়েছে যেখানে আপনারা এই বিষয়ে একটি ডিপ্লোমা কোর্স করতে পারবেন। এবং, আলাদা আলাদা ইনস্টিটিউট এর শেখানোর (সময় ) আলাদা আলাদা।

তবে, এই বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রী (ব্যাচেলর ডিগ্রী) করলে ৩ থেকে ৪ বছর, ব্যাচেলর ডিগ্রী কোরে মাস্টার ডিগ্রী করার জন্য আরো ২ বছর সময় লাগবে। এবং ডিপ্লোমা কোর্স করলে প্রায় ৮-১০ মাস সময় আপনার দিতে হবে।

এর পর, গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার সময় নির্ভর করবে আপনার শেখার ইচ্ছা, অনুশীলন (প্রাকটিস) এবং কতটা জলদি আপনি বিষয়টি ধরে নিতে পারছেন সেগুলির ওপরে।কিন্তু আপনি যত সময় দেবেন খুব তারাতারি সাকসেস হবেন।আর একটা কথা মনে রাখবেন সবসময় সবার মেধা এক না । এটা নির্ভর করবে সম্পন্ন আপনার উপর ।

গ্রাফিক ডিজাইন কেন শিখবেন?

গ্রাফিক ডিজাইন শিখে আপনি আপনার ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন। আর আপনি যদি স্টুডেন্ট বা চাকরিজীবি হন তাহলে কাজের পাশাপাশি এটি করে ভালো একটা ইনকাম করতে পারবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ক্যারিয়ারে চাকরির সুযোগ?

এই বিষয় নিয়ে ডিগ্রী বা প্রফেশনাল গ্রাফিক ডিজাইন কোর্স কোনো ইনস্টিটিউট বা অনলাইন কোনো প্লাটফ্রম থেকে সম্পন্ন করার পর এবং সব ধরণের দক্ষতা এবং জ্ঞান নিয়ে নেয়ার পর, আপনার জন্য প্রায় অনেক ক্ষেত্রে চাকরির সুযোগ এগিয়ে আসে।

সেগুলির মধ্যে কিছু হলো,

১। লোগো ডিজাইনার হিসেবে।
২। বিভিন্ন এডভারটিসিস্ট ক্যম্পানি তে ডিজাইনার হিসেবে।
৩। ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে।
৫। ব্র্যান্ড আইডেন্টি ডিজাইনার হিসেবে।
৬। অ্যানিমেশন ডিজাইনার হিসেবে।।
৭। মিডিয়া পাবলিশিং কোম্পানি তে।
৮। অপ্প্লিকেশন এবং গেম ডেভলপমেন্ট কোম্পনি তে।

এ ছাড়া ও ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটপ্লেস গুলাতে ।
নিচে কিছু ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটপ্লেস এর লোগো দেওয়া হলো।

এবং, আরো অনেক কোম্পানি এবং ভাগ রয়েছে যেগুলিতে আপনারা একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে পারবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন করে আপনি যেসব কার্ডের মাধ্যমে আয়কৃত টাকা হাতে পেতে পারেন?

গ্রাফিক্স ডিজাইন  কি কি কাজে ব্যবহার করা হয় ?

১। কোম্পানির ব্র্যান্ড পরিচয় বা লোগো তৈরি।

২। প্রিন্টেড করা জিনিসে (বই, নিউস পেপার, ম্যাগাজিনে) .

৩। অ্যালবাম কভার তৈরি।

৪। ব্যানার বিজ্ঞাপন তৈরি।

৫। ডিজিটাল  এডভার্তিসএমেন্ট তৈরি করার সময়।

৬। বিভিন্ন ব্লগ এবং ওয়েবসাইট এ এর ব্যবহার হচ্ছে।

৭। জলের বোতলে থাকা ওই ডিজাইন থেকে শুরু করে বিভিন্ন ভোগ্যপণ্য তে থাকা ডিজাইন।

৮। অনলাইন এবং টিভি তে ব্যবহার করা গ্রাফিক্স এবং টাইটেল

বিভিন্ন গ্রাফিক্স কার্ড এ।

৯। বিয়ের ইনভাইটিসয়ন কার্ড এ।

১০। টি -শার্ট এবং জামা কাপড় ডিজাইন করার সময়।

১১। অ্যানিমেশন বানানোর সময়।

১২। বিসনেস ও ভিসিটিং কার্ড বানানোর সময়।

এ ছাড়া আরো অনেক অনেক কাজ রয়েছে, যেখানে গ্রাফিক ডিজাইনিং এর কাজের প্রয়োজন।

গ্রাফিক্স ডিজাইন করে কত টাকা আয় করা যেতে পারে ?

যদি আপনি গ্রাফিক্স ডিজানিং শিখে এই লাইনে চাকরি করার কথা ভাবছেন, তাহলে প্রথম অবস্থায় মাইনে বা বেতনের পরিমান তেমন কোনো খারাপ না।

যেভাবে চাকরির মাধ্যমে আয় করা যেতে পারে :-

ভারতে, এই ক্যারিয়ার নিয়ে চাকরি করা লোকেরা প্রথমেই ৩৫,০০০ থেকে ৫৫,০০০ এর ভেতরে মাইনে পেয়ে যাচ্ছে।

তাছাড়া, আপনার কাজের অভিজ্ঞতা বা নলেজ যত বেশি বাড়বে ততটাই বেশি মাইনে বা স্যালারি আপনার বৃদ্ধি পাবে। অভিজ্ঞতা এবং প্রফেশনাল দক্ষতা থাকা লোকেরা গ্রাফিক্স ডিজাইন ক্যারিয়ারে ১ লক্ষ টাকা অব্দি মাইনে ভারতে পাচ্ছেন।

তাই, অধিক মাইনে বা স্যালারি চাকরির মাধ্যমে পাওয়ার জন্য, গ্রাফিক ডিজাইনের ডিগ্রী এবং তার সাথে কিছু বছরের অভিজ্ঞতা থাকাটা জরুরি।

অবশই, প্রথমেই একজন নতুন হিসেবে ২০ থেকে ৩০,০০০ টাকা বেতনে কাজ করে নিজের অভিজ্ঞতা বাড়াতে থাকতেই পারবেন।

যেভাবে মার্কেটপ্লেস এর মাধ্যমে আয় করা যেতে পারে :-

আমরা জানি ওয়ার্ল্ড এর ভেতর অনেক ও ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটপ্লেস আছে।
সেকানে আপনার ইন্টারন্যাশনাল ক্লাইন্ট এর সাথে কাজ করতে হবে। এর জন্য আপনাকে ভালো ইংলিশ জানতে হবে ।
এখানে আপনি যে রকম অর্ডার কমপ্লিট করতে পারবেন সেরকম ইনকাম হবে ।
অবশই, প্রথমেই একজন নতুন হিসেবে ২০ থেকে ৩০,০০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন পাশাপাশি নিজের অভিজ্ঞতা বাড়াতে থাকতেই পারবেন।

একজন গ্রাফিক ডিজাইনার এর বর্তমানে চাহিদা কেমন?

আমি শুরুতেই আপনাদের বলেছি, আমরা বেশিরভাগ ছাত্ররা কমার্স , আর্টস , সাইন্স এবং কিছু ক্ষেত্রেইঞ্জিনিয়ারিং ছাড়া অন্য কোনো ডিগ্রী করার কথা ভাবিনা।

তাই, অন্য অন্য বিষয় গুলি, যেগুলির মধ্যে গ্রাফিক ডিজাইনিং ও রয়েছে, অনেক কম পরিমানের ছাত্ররা করছেন।

এতে, এই বিষয়ে দক্ষতা, জ্ঞান বা নলেজ থাকা লোকেদের চাহিদা অনেক পরিমানেই বেড়ে গেছে। বিভিন্ন কোম্পানি রয়েছে, যেখানে গ্রাফিক্স ডিজাইনের এর প্রয়োজন।

কিন্তু, এই বিষয়ে ডিগ্রি, যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা অনেক কম লোকের থাকার জন্যে, কোম্পানিরা অধিক বেতন দিয়ে কর্মচারী দেড় রাখছেন।

আজ, গাড়ির কোম্পানি থেকে আরম্ভ করে যত এজেন্সী আছে প্রায় সব ধরণের ছোট বড়ো কোম্পানিতে একজন গ্রাফগিন ডিজাইনার এর প্রয়োজন।

তাই, যখন কথা আসছে, গ্রাফিক্স ডিজাইন এর চাহিদার, তখন আমি বলবো, “এই শিল্প শিখে আপনি এক উজ্জ্বল ভবিষৎ বানিয়ে নিতে পারবেন।

কিন্তু , আপনার সফলতা আপনার হাতে। আপনি কত রুচি রেখে ডিজাইনিং শিখবেন, কতটা ইন্টারেস্ট আপনার রয়েছে এবং কাজ শেখার ইচ্ছা আপনার রয়েছে কি না, সবটার ওপরে নির্ভর আপনার সফলতা পাওয়া।

ঘরে বসে অনলাইন এ গ্রাফিক ডিজাইন কিভাবে শিখবো ?

এখন আপনারা যদি ঘরে বসেই ফ্রীতেই গ্রাফিক ডিজাইনিং এর কাজ শিখতে চান, তাহলে সেটার দুটো মাধ্যম রয়েছে।

  • ইউটুভ ভিডিও দেখে।
  • বিভিন্ন ওয়েবসাইট এ গিয়ে।
  • অনলাইন বা অফলাইন কোর্স এর মাধমে।

ঘরে বসে গ্রাফিক ডিজাইন শেখার জন্য প্রথমেই আপনারা এডোবি ফটোশপ , এডোবি ইলাস্ট্রেটর, এডোবি ইনডিজাইন এগুলির মতো সফটওয়্যার বা গ্রাফিক্স টুল ব্যবহার করা শিখুন।

এই ধরণের গ্রাফিক্স টুলের ব্যবহার শিখলে আপনারা লোগো, বিসনেস কার্ড, সোশাল মিডিয়া পোস্ট এর মতো অনেক ডিজাইন বানিয়ে নিতে পারবেন।

তারপর, আস্তে আস্তে এই বিষয়ে আরো অ্যাডভান্সড ভাবে শেখা শুরু করতে পারবেন।

আপনি ফ্রিতে কখনোই কোন দিন পুরোপুরি শিখতে পারবেন না। ইউটিউব বা ওয়েবসাইট বলেন। হ্যাঁ আপনি ইউটিউব বা ওয়েবসাইট থেকে একটা আইডিয়া পাবেন সেটা ডিজাইন বা টুলস এর বিষয়ে।আপনি কখন একটা প্রপারলি গাইডলাইন বা বেসিক টু অ্যাডভান্স কিছু শিখতে পারবেন না।আপনারা যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে ভালোমানের একটা ইনকাম করতে চান তাহলে

গ্রাফিক ডিজাইন নিয়ে আমার সর্বশেষ কথা ?

আপনারা যদি চান লেখাপড়া বা চাকরির পাশাপাশি মাস গেলে ৩০,০০০ থেকে এক লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করবেন তাহলে আপনারা অবশ্যই পারবেন। এর জন্য আপনাকে ধৈর্য এবং একটু কষ্ট করতে হবে। কারণ কথায় আছে কষ্ট না করলে কেষ্ট মেলে না। তাই আপনারা কষ্ট করুন ঈশ্বর/আল্লাহ আপনাদের ফল একদিন দিবে।

আর্টিকেল যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে, তাহলে অবশই আপনার বন্ধু এবং পরিবারের সদস্যের সাথে শেয়ার করবেন।

11 Comments

  1. Raju

    খুব হেল্পফুল একটা পোস্ট ভাই। যারা নতুন করে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে যাচ্ছে তাদের খুব উপকার হবে। পার্সোনালি আমার খুব উপকার হয়েছে। অনেক কিছু জানতে পারলাম। ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করতে চাই না। কারণ আপনি আমাকে অনেক হেল্প করছেন। ধন্যবাদ ভাই। আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা রইল। ❤️❤️❤️

    Reply
    • নয়ন বিশ্বাস

      ধন্যবাদ ভাই। আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা ❤️❤️❤️

      Reply
  2. Shimul

    Amazing post bro … Thank you so much…

    Reply
  3. Tisha

    ভাইয়া আপনি একজন খুব হেল্প ফুল মানুষ। কারন আপনাকে নক দেয়ার সাথে সাথে বুঝতে পারছি। আপনি ইউটিউবে একটা চ্যানেল খুলতে পারেন। সেখানে আপনি ভিডিও আপলোড করতে পারেন পাশাপাশি আপনার একটা ইনকামের সোর্স ও বাড়লো এবং আপনার কাছ থেকে আমরাও কিছু শিখতে পারলাম। ধন্যবাদ দিয়ে আপনাকে ছোট করতে চাই না।

    Reply
  4. Joy biswas

    খুব ভালো লাগছে ভাই। ধন্যবাদ আপনাকে।

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

নিত্য নতুন আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকুন।

সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ!

Pin It on Pinterest

Share This