ফেসবুক পেজে এ কিভাবে ফলো
ফেসবুক পেজে এ কিভাবে ফলোয়ার বাড়াবেন ২০২১? রিয়েল ৫ টি টিপস

আমি যদি আপনাদের কাছে প্রশ্ন করি, বিশ্বের সর্বাধিক ব্যবহৃত এবং সবচেয়ে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া সাইট কোনটি? আমি নিশ্চিত আপনারা সবাই কোনো দ্বিধা দ্বন্দ্ব ছাড়াই উত্তর দিয়ে দিবেন ফেসবুক। বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া সাইট হচ্ছে ফেসবুক। সব বয়সের সব শ্রেণীর মানুষের সমাগম রয়েছে এই সাইটটিতে। আর আপনার যদি এই সাইটে প্রবেশ থাকে, আর আপনার একটি ফেসবুক পেজ থাকে। আপনি নিশ্চয়ই চিন্তিত এই পরিস্থিতিতে কীভাবে আপনি ভিজিটর বানাবেন? কিভাবে লাইক বাড়াবেন? ফলোয়ার বানাবেন? তাই আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সাথে কিছু টিপস শেয়ার করতে যাচ্ছি যেগুলোর মাধ্যমে আপনি কোন কিছু ছাড়া অন্য কোন পন্থা এবং ডুবলিকেট ইলিগ্যাল কোন পন্থা ছাড়াই আপনি নিজে আপনার ফেসবুক পেইজে লাইক এবং ফলোয়ার বাড়াতে পারবেন। ভিজিটর বাড়াতে পারবেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।  পোস্ট টি তে আমি আপনাদের শেষ পর্যন্ত থাকার অনুরোধ করছি। কেননা পুরো পোস্টে আমি যে টিপস গুলো শেয়ার করবো প্রত্যেকটা গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম দুই তিন টা লাইন পড়ে দৌড় দিয়েন না। তাহলে কিন্তু অনেক কিছু জানতে পারবেন না।

ফেসবুক পেজে আপনার ফলোয়ার লাইক বাড়ানোর জন্য আপনাকে করতে বলবো সেটা হচ্ছে নিয়মিত পোস্ট করা। এটা আপনার কাছে যদি সত্যিকার অর্থেই একদম নরমাল কোন ব্যাপার হয়ে থাকে। তাহলে আপনি ভুল করছেন কেননা নিয়মিত পোস্ট করার চাইতে সবচাইতে ভালো জিনিস আর কিছুই হতে পারে না। কেন বললাম আমি এটা? এর কারণ হচ্ছে আপনি যখন কোন সাইটে নিয়মিত পোস্ট করেন তাহলে, সোশ্যাল মিডিয়ার সার্চ ইঞ্জিন নিয়মিত পোস্টগুলো তখন সেই সার্চ ইঞ্জিনে আপনার অ্যাক্টিভিটি বেশি হওয়া আপনার এই পোস্টগুলোকে অনেক বেশি ভিজিটর সামনে অটোমেটিক্যালি ইন্সেরট করবে। অটোমেটিক নিয়ে নিবে আর তখন কিন্তু এমনিতেই আপনি আপনার পেইজে লাইক পাবেন পাবেন ফলোয়ার পাবেন। এই ব্যপারগুলো আপনাকে ফলো করতে হবে। ঠিক আছে এরপরে যে জিনিসটা চলে আসে সেটা হচ্ছে, যে আপনি পোস্ট করবেন কিভাবে? করবেন আমি এটা বলছি না যে আপনি আজকের কালকের প্রশ্ন আজকে পোস্ট করে রাখবেন এটা সেটা বোঝাতে চাচ্ছি যে আপনি একটা টাইম নির্ধারণ করুন। যে কোন সময় পোস্ট করবেন এই পোস্ট করার ক্ষেত্রে আমরা অনেকেই অনেক ভুল করে থাকি। আমাদের পোস্ট করা উচিত সেই সময় যখন সোশ্যাল নেটওয়ার্কগুলোতে অনেক বেশি ভিজিটর থাকে অনেক বেশি অডিয়েন্স থাকে। অনেক বেশি দর্শক থাকে। অথবা অনেক বেশি মানুষ থাকে, যেটাই বলেন না কেন আর সেই সময়টা কোথায় সেই সময়টা হচ্ছে আমাদের বাংলাদেশে কখন সেটা আপনাকে বুঝতে হবে। আপনি যদি ইন্ডিয়াতে থাকেন আপনি যদি পাকিস্তানে থাকেন, আপনি বিশ্বের যেকোন প্রান্তে থাকেন না কেন, আপনার টার্গেট অডিয়েন্স আপনার ভিজিটর যারা আছে তাদেরকে আপনাকে ফলো করে তারপর আপনার পোস্ট করতে হবে। তাদেরকে ফলো করে আপনি কিভাবে পোস্ট করবেন যেমন ধরেন আমাদের বাংলাদেশেও আর কোন সময় মানুষ কাজ থেকে ফ্রি থাকে কোন কাজে ব্যস্ত থাকে না। আমাদের বাংলাদেশে আমরা ধরে নিতে পারি অফিস টাইম শেষ হয় ৬:০০ টা থেকে রাত ৯:০০ টা পর্যন্ত মোটামুটি মানুষ ফ্রি থাকে যারা পড়াশোনা করে না আর যারা পড়াশোনা করে তারা ও মোটামুটি এই পর্যন্ত ফ্রি থাকে। তারপরে পড়াশোনা করতে বসে। আপনাকে এই অভ্যেস করতে হবে। এই টাইমে আপনাকে পোস্ট করতে হবে। বেশি বেশি মানুষ সামনে থাকে তখন যদি আপনি পোস্ট করেন তাহলে সেই পোস্টে লাইক বেশি আসার সম্ভাবনা রয়েছে। এবং পোস্ট যদি ভাল হয় তাহলে সেক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার ফলোয়ার বাড়বে লাইক বাড়বে।

আপনার ফেসবুক পেজ প্রত্যেকটা মানুষের জন্য করতে চাচ্ছেন না কি, সেটা আপনাকে বুঝতে হবে। যে আপনার ফেসবুক পেজ টা হচ্ছে মেডিকেল রিলেটেড। অথবা আপনাকে বুঝতে হবে যে এখন আমাদের দেশে কোন কোন রোগের চাহিদা বেশি। অথবা আমাদের দেশে কোন কোন রোগে মানুষ বেশি। জানতে চাই ঠিক আছে। যেমন নিয়ম মেনে পোস্ট করবেন আপনি তেমন হেল্পফুল টিপস শেয়ার করবেন। আপনি যা বলেন না কেন তারা যখন আপনার প্রতি সন্তুষ্ট তখন আপনার পেজটাকে ফলো করবেন। আর এভাবেই আপনি ফলোয়ার বাড়াতে পারবেন। আর ঠিক একইভাবে আপনার যদি কোনো ওয়েবসাইট থাকে, তখন আপনাকে বুঝতে হবে যে ওয়েদার অনুযায়ী মেয়েদের কোন জিনিস দরকার? এখন যেটা চলছে সেটা এখন কি হচ্ছে? এগুলো খুঁজে খুঁজে বের করে সেগুলো সম্পর্কে আপনাকে বলতে হবে। এবং আপনাকে এক্সপ্লেইন করতে হবে। যখন আপনি আপনার ভিজিটরকে দিতে পারবেন অথবা আপনি নিজেই মানুষের কাছে পৌঁছাতে চাচ্ছেন তাকে যদি আপনি কোয়ালিটি প্রডাক্ট কোয়ালিটি লেখা দিতে পারেন তাহলে সেক্ষেত্রে কিন্তু সে আপনাকে লাইক দিবে, এবং আপনার পেইজ কে ফলো করবে ঠিক আছে। আর কিছু বলতে চাই সেগুলো হচ্ছে, আপলোড করতেছেন ঠিক আছে, যেকোনো একটা আপলোড করে যাচ্ছেন দিনের পর দিন কিন্তু কিছু হচ্ছেনা কোন লাভ নেই। আপনাকে কিওয়ার্ড রিসার্চ করে করে আপনার ফেসবুক পোস্ট লিখতে হবে। কিওয়ার্ড রিসার্চ করার জন্য আপনি বিভিন্ন ওয়েবসাইট আছে সেখান থেকে এই সম্পর্কিত কি নিয়ে মানুষ এখন বিভিন্ন জায়গায় সার্চ করছে এগুলো ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। আপনার ফেসবুক পেইজের পোষ্টগুলো মানুষের সামনে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ঠিক আছে। তারপরে আপনি ছবি দিবেন দিবেন ভিডিও এনিমেশন দিবেন। যেটা আপনার পক্ষে সম্ভব হয় ঠিক আছে চেষ্টা করবেন।আপনার ফেসবুক পেইজের সাথে যায় এমন সমন্বিত অনেক গ্রুপে এড হতে পারেন। তারপর ফেসবুকে কমেন্ট করতে পারেন ঠিক আছে।তবে স্পামিং কমেন্ট না বিভিন্ন কমেন্টের মাধ্যমে কিন্তু আপনার ফেসবুকের ভিজিটর আসতে পারে। তবে বিভিন্ন ধরনের আলোচনা করতে পারেন। মানুষের কাছে। ভালো লাগবে সেই গ্রুপ থেকে ও কিন্তু মানুষ আপনার পেইজে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। সেখানে গিয়ে আপনি বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট নিয়ে আলোচনা করতে পারেন যখন আপনার কনটেন্ট মানুষের কাছে ভালো লাগবে সেই গ্রুপ থেকে ও কিন্তু মানুষ আপনার পেইজে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। তারপর ফেসবুক মেসেঞ্জারে রিপ্লাই দেয়ার জন্য যদি আপনাকে মেসেজ করলে মেসেজের রিপ্লাই দিবেন এবং পরবর্তীতে তাকে নক করতে পারেন উত্তর দুইটা একসাথে শুরু করা উচিত।

তারপরও যে ব্যাপারটা আপনাদের সাথে শেয়ার করব সেটা হচ্ছে আপনার সাইটে লাইভ ফেসবুক মেসেঞ্জারে এড করুন। মানে আপনাকে রিপ্লাই দেয়ার জন্য অলরেডি রেডি থাকতে হবে। যদি আমাকে কেউ কমেন্ট করে অথবা আপনার ফেসবুক মেসেঞ্জার কেমনে অটোমেটিক করে রাখুন। যাতে করে কেউ আপনাকে মেসেজ করলে সেই মেসেজের রিপ্লাই আসে। অটো দিয়ে দেয় এবং আপনি পরবর্তীতে তাকে নক করতে পারেন।

ফাইনালি আপনাদের সাথে আমি শেয়ার করতে যাচ্ছি সেটা হচ্ছে ফেসবুকে আপনি টাকা দিয়েও কিন্তু লাইক এবং ফলোয়ার বানাতে পারেন। তবে সেটা হচ্ছে ফেসবুকে বুষ্টিং করার মাধ্যমে। আপনি কোন থার্ড পার্টি ওয়েবসাইট ইউজ করে সেটা করবেন না। আপনি সরাসরি নিজেই আপনার যদি ক্রেডিট কার্ড অথবা ডেবিট কার্ড ইন্টার্নেশনাল ডুয়েল কারেনসি থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনার কনটেন্ট বা পেজ প্রমোট করতে পারবেন। আর সেক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে ফলো করতে হবে, যেন অনেক ভালো হয় পরিশেষে একটা ব্যাপার আপনাদের সাথে শেয়ার করতে যাচ্ছি সেটা হচ্ছে এইটা শুরুতে বলা উচিত ছিল কিন্তু শেষে এজন্য বলছি যাতে করে আপনারা গুরুত্ব দিয়ে পোস্ট টি পড়েন। আপনার ফেসবুকের প্রত্যেকটা সেটিংস আপনার প্রফেশনালি সেটিংস করে রাখতে হবে। কাস্টমাইজ করে রাখতে হবে। যেমন আপনার পেইজের নাম, আপনার পেজের অ্যাবাউট, আপনার পেইজে কন্টাক্ট অ্যাড্রেস, তারপর আপনার পেইজের কন্টাক্ট ডিটেইলস, যদি ওয়েব সাইট থাকে সেই ওয়েবসাইটের এড্রেস এবং আপনার ওয়েবসাইটটি সম্পর্কে সেই রিলেটেড সবকিছু আমার ফেসবুকে যা যা প্রয়োজন আপনার পেজের মধ্যে ইনফরমেশন দেয়া যায় আপনার ফেসবুকের পেইজ রিলেটেড ইনফরমেশন গুলো দিয়ে আপনার ফ্যান পেইজ থাকে অথবা বিজনেস পেজ থেকে আপনি পরিপূর্ণ করে রাখুন। প্রোফাইল পিকচার কভার পিকচার, এর পাশাপাশি আপনি এই সবগুলো ব্যাপারে এখানে ইনক্লুড করার চেষ্টা করুন। আপনি ফলো করে আপনি কন্টিনিউয়াসলি ফেসবুকে পোস্ট করে যাবেন। সেক্ষেত্রে আপনি একটা ভালো ফিডব্যাক পাবেন।

আপনার পারসোনালি যদি পোস্টটি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই পোস্টটিতে লাইক দিবেন। এবং কমেন্টে আপনার মতামত জানাতে ভুলবেন না।

2 Comments

  1. Md Akash Mahmud

    very very Helpfull tips Bhaiya… Apnar Sathe Kivabe Contact Korthe Pari Bhai?

    Reply

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

নিত্য নতুন আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকুন।

সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ!

Pin It on Pinterest

Share This
0

Your Cart